Monday, August 13, 2012

আপা, আরেকবার ০১

মেয়েদের নগ্ন বক্ষ দেখে কার কেমন অনুভুতি হয়, তখন আমার জানা থাকার কথা নয়। ক্লান্ত দেহের কেয়া আপা সত্যিই সেদিন অর্ধ নগ্ন দেহে আমার বিছানাতেইচিৎ হয়ে শুয়ে পরলো। তার পরনে তখন শুধুমাত্র সাদা একটা স্যালোয়ার ছাড়া অন্য কিছুই নেই। তেরো চৌদ্দ বছর এর মাঝামাঝি বয়সের এই আমি, কেয়া আপার পাশে বসে খানিকটা ক্ষণ শুন্য দৃষ্টি মেলেই তাঁকিয়েরইলাম, কেয়া আপার নগ্ন বক্ষের দিকে। কেয়া আপা মুচকি হেসে বললো, কি ব্যাপার? ছুয়ে দেখবে না?
আমি এবার কেয়া আপার বুকের উপর বড় বড় জাম্বুরা আকৃতির স্তন
দুটোর দিকে মনোযোগ দিলাম। ঘরের উজ্জল আলোতে, স্তন যুগলের ডগায় খয়েরী গোলাকার অংশটারডগায়, বৃন্ত দুটো চিক চিক করছিলো। আমি সেখানেই আঙুলী স্পর্শ করলাম। নিজের অজান্তেইআমার দেহটা কেমন যেনো উষ্ণতর হয়ে উঠলো। সেই সাথে লক্ষ্য করলাম, কেয়া আপার দেহটাও কেমন যেনো কেঁপে কেঁপে উঠলো। আমি সাথে সাথে আঙুলীটা সরিয়েনিয়ে বললাম, কেয়া আপা, তুমি আমার উপর রাগ করে কোন শাস্তি দিচ্ছো না তো!
কেয়া আপা ঘুম ঘুম চোখে বললো, জানিনা, আমার খুব ঘুম পাচ্ছে!
এই বলেকেয়া আপা সত্যি সত্যিই ঘুমিয়ে পরলো খানিকটা ঘন ঘন নিঃশ্বাস নিতে নিতে। আমি উপায়ন্তর না দেখে, হেড লাইটটা নিভিয়ে, ডিম লাইটটা জ্বালিয়ে, কেয়া আপার পাশেই কাৎ হয়ে শুয়ে পরলাম, আমার ডান হাত এর তালুটা কেয়া আপার ডান বক্ষটা পেরিয়েবাম স্তনের উপর চেপে রেখে। সেভাবে কখন যে ঘুমিয়ে পরেছিলাম, নিজেও টের পেলাম না।
নিজের অজান্তেই কখন যে কেয়া আপার বক্ষ থেকে হাত সরিয়ে চিৎ হয়েই ঘুমুচ্ছিলাম টেরই পাইনি। হঠাৎই একটা রোমান্টিক স্বপ্নেই ঘুমটাভেঙে গেলো মাঝরাতে। ঘুমেরমাঝেই আমি নড়ে চড়ে অপর দিকে কাৎ হয়ে শুতে চাইলাম। ঠিক তখনই কেনো যেনো, আমার ট্রাউজারেঢাকা ছোট্ট শিশ্নটায় একটাটান অনুভব করলাম। ঘুমের মাঝে মনের ভুল ভেবে আবারো কাৎ হয়ে শোবার উদ্যোগ করলাম। নাহ, ব্যাপারটা মনের ভুল নয়। আমার শিশ্নটা সত্যিই যেনো কোথাও আটকে রয়েছে। ঘুমের মাঝে প্রাকৃতিকভাবেই আমার বাম হাতটা এগিয়ে গেলো আমার শিশ্নটার দিকে।আমি সত্যিই অনুভব করলাম , আমার শিশ্নে কি যেনো একটা আটকে রয়েছে। হঠাৎ ভয়েই আমি উঠে বসে পরলাম।
উঠে বসে ঘরের ডিম লাইটের আলোতে যা দেখলাম, তাতে করে রীতীমতো অবাকই হলাম। আমি দেখলাম, কেয়া আপা আমার দিকেই কাৎ হয়ে বেঘোরে ঘুমুচ্ছে। আর তারই বাম হাতের মুঠিতে বন্দী হয়ে আছে আমার শিশ্নটা। আর এতে করেই দীর্ঘ একটা সময় আমার দেহটা শিহরিত হয়েছিলো, আর তার জন্যেই বোধ হয় রোমান্টিক একটা স্বপ্নও দেখেছিলাম ঘুমের ঘোরে। যেটা ছিলো, কেয়া আপা দুষ্টুমীর ছলেইআমার নুনুটা মুঠিতে নিয়েছিলো। এখনতো দেখছি সত্যি সত্যিই কেয়া আপা আমার নুনুটা তার মুঠিতে নিয়ে আছে। আমি আর কেয়া আপাকে বাঁধা দিলাম না। আমার যেমনি কেয়া আপার সুন্দর বক্ষ স্পর্শ করার ইচ্ছে করে, তেমনি কেয়া আপারও তো আমার নুনুটা ধরার ইচ্ছে বোধ হয় অনেক দিন আগে থেকেই পোষন করে এসেছিলো। আজ সুযোগ হয়েছে, তাই বোধ হয় সে আর লোভ সামলাতে পারেনি। আর তার জন্যে তাকে অপরাধও তো দেয়া যায় না। কেনোনা, আমার অনুমতি নিয়েই, তার নগ্ন বক্ষ ছুয়ে দেখার অনুমতি দিয়েই তো আমার পাশে ঘুমিয়েছে! আমি যদি কেয়া আপার বক্ষ ধরে দেখতে পারি, কেয়া আপা কেনো আমার নুনু ধরে দেখতে পারবেনা? আমি আবারো শুয়ে পরলাম, তবে ঘুম এলো না। কেননা, আমার নুনুটি কেয়া আপার মুঠিতে থেকে থেকে নুতন করে সারা দেহে অপূর্ব এক শিহরণ জাগিয়ে তুলতে থাকলো।
ভোর রাতের দিকে আমার প্রস্রাবেরও খুব বেগ পেলো। অথচ, সেটাকেও সংযম করে নিলাম, এই কারনে যে, আমিচাইনা কেয়া আপা জানুক যে, কেয়া আপার এই মুঠি ভরা শিশ্ন আমি টের পেয়ে গেছি। তাই আমি মিছেমিছি ঘুমেরভান করেই পরে রইলাম।
কেয়া আপার ঘুম ভাঙে খুব ভোরে। পাখিদের কলকাকলিতে, বাইরের আকাশটা যখন খানিকটা ফর্সা হয়ে উঠে। পাখিদের কলকাকলি কানে এতেই, কেয়া আপার চোখ দুটোও বুঝি খোলে গিয়েছিলো। আমিঅনুভব করলাম, হঠাৎই আমার নুনুটা কেয়া আপার মুঠি মুক্ত হলো।
কেয়া আপা অন্য দিন গুলোর মতোই নাস্তা রেডী করে, টুথ ব্রাশে দাঁত মাজতে মাজতেই আমাকে ডাকতে এলো। আমার ঘরের জানালার পর্দা গুলো সরিয়ে দিতেই, আমি খুব স্বাভাবিক মন নিয়েই ঘুম থেকে উঠার ভান করে, হাত মুখটা ধুয়ে নাস্তার টেবিলে গেলাম।
নাস্তা শুরু করতেই, কেয়া আপা এক টুকরা পরটা দিয়ে ভাজা ডিমের একাংশ পেঁচিয়ে, মুখে পুরে দিয়ে বললো, স্যরি অনি!
আমি কৃত্রিম একটা অবাক হবার ভান করে বললাম, স্যরি কেনো?
কেয়া আপা খানিকটা অন্যমনস্ক থেকেহঠাৎই বললো, আচ্ছা, তুমি বড় হবে কবে বলো তো?
কেয়া আপার প্রশ্নটারকিছুই বুঝলাম না আমি। বোকার মতোই তার মুখের দিকে তাঁকিয়ে রইলাম। কেয়া আপা নিজে থেকেই বললো, তুমি যতটা বড় হয়েছো ভেবেছিলাম, আসলে ততটা বড় কিন্তু তুমি হওনি!
আমি এবার সত্যিই অবাক হয়ে বললাম, মানে?
কেয়া আপা মুখের ভেতর রাখা পরটার টুকরোটা চিবিয়ে চিবিয়ে গিলে নিয়ে বললো, ওসব মানে আমি ব্যাখ্যা করতে পারবো না। তবে, এতটুকু বুঝতে পারছি, তোমাকে ভালোবেসে খুব ভুলই করেছি!
কেয়া আপার কথায় আমার মনটা খুব খারাপ হয়ে গেলো। নাস্তায়আর মন বসলো না। এমন কি খাবারের রুচিটাও নষ্ট হয়ে গেলো। আমি মরিয়া হয়েই বললাম, আমার অপরাধ?
কেয়া আপা মিষ্টি করেই হাসলো। তারপর বললো, তোমার অপরাধ একটাই! তুমি এখনো পয্যাপ্ত পরিমাণে বড় হওনি!
কেয়া আপার কথা কিছুই বুঝতে পারলাম না। আমার খুবই কান্না পেতে থাকলো। সিলভী নামের একটা মেয়েকে আমার খুবই ভালো লাগে। অথচ, এতটা দিন কেয়া আপার অকৃত্রিম ভালোবাসা পাবারকারনেই বোধ হয়, আমার মনে সিলভী অতটা জায়গা করে নিতে পারেনি। কেনোনা, এই মুহুর্তে আমার মনের সবটুকু জুড়ে শুধু কেয়া আপা, আর কেয়া আপা! যার প্রথম চুমু আমার ঠোটে, যার চমৎকার বক্ষ আমাকে মাতাল করে তোলে, যার সুন্দর হাঁটা, চলাফেরা মডেল তারকাদেরও হার মানায়!
কেয়া আপা আমাকে আশ্বস্ত করে বললো, তুমি আরেকটু বড় হলে, যা মজাটাই হবে না! আমি তো ভাবতেই পারছিনা! কারন, ভাবতেই আমার মনটা আনন্দে আনন্দে ভরে উঠে!তখন দুজনে হংস মিথুনের মতোই হারিয়ে যাবো!

1 comment: